দোহাজারীর শঙ্খ নদীতে নির্মিত রেলওয়ে সেতুতে ইস্পাতের প্রথম গার্ডার স্থাপন

প্রকাশিত: ৭:৩৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৭, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

দক্ষিণ চট্টগ্রামের ব্যস্ততম শহর নামে খ্যাত দোহাজারীতে অন্যতম অগ্রাধিকার প্রকল্প দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথ নির্মাণকাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। দীর্ঘ ১২৮ কিলোমিটার রেলপথের মধ্যে দোহাজারী অংশে ১৮টি সেতুর পিয়ার নির্মাণকাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। এখন চলছে গার্ডার ও স্প্যান বসানোর কাজ। তারই অংশ হিসেবে গত রবিবার দোহাজারী শঙ্খ নদীর উপর নির্মিত রেলসেতুর উপর প্রথম ইস্পাতের গার্ডার বসানো হয় এবং গত বুধবার বিকেলে দ্বিতীয় গার্ডার বসানো হয়। পাশাপাশি কক্সবাজার অংশের ২০টি সেতুর গার্ডার বসানোর কাজ প্রায় শেষের দিকে বলে জানা গেছে।

দোহাজারীতে রেলওয়ে সেতুর প্রথম ইস্পাত গার্ডার বসানোর সময় উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প পরিচালক মো. মফিজুর রহমান। তিনি সাংবাদিকদের জানান, ২০১৭ সালে দুটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে রেলের চুক্তি সম্পাদন হয়। কিন্তু জমি পেতে দেরি হওয়ায় প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজও দেরিতে শুরু হয়। এখনো কিছু কিছু জায়গায় সামান্য জটিলতা থাকলেও ২০২২ সালের মধ্যে সারাদেশের রেলওয়ে নেটওয়ার্কের সাথে কক্সবাজারকে যুক্ত করার লক্ষ্যে দ্রুতগতিতে কাজ এগিয়ে নেয়া হচ্ছে। তিনি চলমান কোভিড-১৯-এর কারণে কাজে বাধার সৃষ্টি না হলে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই সম্পূর্ণ কাজ শেষ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন। ইতোমধ্যে এ প্রকল্পের ৫৪% কাজ শেষ হয়েছে। এ প্রকল্পের কাজ শেষে হলে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে যাতায়াত নিরাপদ হবে এবং আন্তর্জাতিকভাবে আরো সমৃদ্ধ হবে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প।

জানা গেছে, এই প্রকল্পকে দুটি লটে ভাগ করা হয়েছে। প্রথমটি দোহাজারী থেকে কক্সবাজারের চকরিয়া পর্যন্ত ৫০ কিলোমিটার এবং দ্বিতীয়টি চকরিয়া থেকে রামু হয়ে কক্সবাজার সদর পর্যন্ত ৫০ কিলোমিটার। এ প্রকল্পের কার্যাদেশ পেয়েছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন (সিআরইসি), দেশীয় তমা কনস্ট্রাকশন কোম্পানি, চায়না সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কর্পোরেশন (সিসিইসিসি) এবং দেশীয় ম্যাক্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড। ২০১৮ সালে এ প্রকল্পের নির্মাণকাজ শুরু হয়। ইতোমধ্যে অর্ধেকেরও বেশি কাজ শেষ হয়েছে।