সিডিএর খাতায় একটি এলইডি বাতির দাম ২ লাখ ৭১ হাজার টাকা!

চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামের আউটার রিং রোড প্রকল্পের মূল প্রস্তাবে প্রতিটি এলইডি লাইটের পেছনে খরচ ধরা হয়েছিল ৪৮ হাজার ১৩১ টাকা। সেটিই এখন ‘সংশোধন’ করে ধরা হয়েছে ২ লাখ ৭১ হাজার টাকা। লাইটপ্রতি দাম বাড়িয়ে নেওয়া হয়েছে প্রায় সাড়ে পাঁচ গুণ। একই কাণ্ড করা হল বায়েজিদ বোস্তামী সড়ক প্রকল্পেও।
প্রায় ১০ বছর ধরে চট্টগ্রামে দুটি সড়ক নির্মাণের কাজ করছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)। সেই সড়ক দুটি নির্মাণের কাজ শেষ হচ্ছেই না। এবার সড়ক দুটিতে এলইডি লাইট বসানোর জন্য সিডিএ এমন এক দাম ধরে বসেছে, যা নিয়ে তৈরি হয়েছে তোলপাড়। দেশের ইতিহাসেই এমন অস্বাভাবিক বেশি দামে এলইডি লাইট বসানোর প্রস্তাব আর আসেনি কোনো প্রকল্পে।
শুধু তাই নয়, মূল প্রকল্পে বরাদ্দ ছিল প্রায় ১৭৩ কোটি টাকা, দফায় দফায় সংশোধন করতে করতে এখন সেই প্রকল্পের ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬০ কোটি টাকারও বেশি। অথচ ভূমি অধিগ্রহণ, ক্ষতিপূরণ ছাড়াও বিভিন্ন খাতে অর্থ সাশ্রয় হয়েছে বলে উল্লেখ করা আছে সংশোধনী প্রস্তাবের বিবরণীতে। এরপরও কেন দ্বিগুণেরও বেশি ব্যয় বাড়বে— এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে।
অথচ ২০২০ সালেই ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের একটি প্রকল্পে প্রতিটি এলইডি লাইট কেনা ও স্থাপনে ব্যয় হয়েছে মাত্র ৭৯ হাজার ৫০০ টাকা— যা চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রস্তাবিত দরের চেয়ে সাড়ে তিন গুণ কম।
চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) মূল মূল প্রকল্পে প্রতিটি এলইডি লাইট কেনা ও স্থাপনে ব্যয় ধরা ছিল ৪৮ হাজার ১৩১ টাকা। সেই প্রস্তাবটিই এখন সংশোধন করে লাইট প্রতি ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৬০ হাজার টাকারও বেশি। লাইটপ্রতি দাম বাড়ানো হয়েছে প্রায় সাড়ে পাঁচ গুণ।
দেশের ইতিহাসের এলইডি লাইট স্থাপনে এমন দর প্রস্তাব আর দেখা যায়নি অতীতে। প্রায় সাড়ে পাঁচ গুণ বেশি দর হাঁকিয়েও বিস্ময়করভাবে সিডিএর প্রস্তাবিত আউটার রিং রোড প্রকল্পে লাইটপ্রতি ২ লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ের প্রস্তাব একনেকে অনুমোদিতও হয়ে গেছে। একই ধরনের অপর একটি প্রস্তাব এখন অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। সিডিএতে এলইডি লাইট নিয়ে বেশি টাকা বরাদ্দ নেওয়ার ঘটনা এর আগেও ঘটেছে। ‘কনস্ট্রাকশন অব নর্থ-সাউথ রোড-১’ প্রকল্পে চট্টগ্রামের এই উন্নয়ন সংস্থাটি প্রতিটি এলইডি বাতি কেনা ও স্থাপনে ব্যয় করেছিল ২ লাখ ৩৫ হাজার ৮২০ টাকা করে।

এর আগে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনও নগরীর সড়কে এলইডি লাইট লাগানো নিয়ে একই কাণ্ড করে অস্বাভাবিক খরচ দেখিয়েছে প্রতিটি এলইডি লাইটের পেছনে। ২০১৯ সালে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ‘মডার্নাইজেশন অব সিটি স্ট্রিট লাইট সিস্টেম অ্যাট ডিফারেন্ট এরিয়াস আন্ডার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন’ প্রকল্পে প্রতিটি বাতি স্থাপনে ব্যয় হয়েছে ১ লাখ ২৬ হাজার ৬৫০ টাকা। অথচ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন তাদের ‘ডেভেলপমেন্ট অব ডিফারেন্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচারস আন্ডার দ্য ঢাকা সাউথ সিটি করপোরেশন (সেকেন্ড রিভাইজড)’ প্রকল্পের অধীনে প্রতিটি এলইডি বাল্ব ক্রয় ও স্থাপনে ব্যয় ধরেছে মাত্র ৬৪ হাজার ৮৫৫ টাকা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.