রোমাঞ্চকর সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার জয়

প্রকাশিত: ৪:৪৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০২১

স্পোর্টস ডেস্ক

শেষ ৩০ বলে অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন ছিল ৬২ রান। ক্রিজের দুই অপরাজিত ব্যাটার মার্কাস স্টয়নিস ও ম্যাথু ওয়েড যেভাবে ধুঁকছিল মনে হচ্ছিল অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে যাওয়া পাকিস্তানের জন্য সময়ের ব্যাপার মাত্র। কারণ সেটিই ছিল অস্ট্রেলিয়ার শেষ স্বীকৃত ব্যাটিং জুটি। তাছাড়া টুর্নামেন্টজুড়ে অসাধারণ ব্যাটিং করা শাহিন শাহ আফ্রিদির দুই ওভার তখনও বাকি। কিন্তু শেষ দিকে ওয়েড-স্টয়নিসের কাব্যিক প্রত্যাবর্তনে ফাইনালের টিকিট পেয়েছে অস্ট্রেলিয়াই।
বিজ্ঞাপন

শেষ দিকে শাহিন আফ্রিদি, হাসান আলিদের ওপর চড়াও এক ওভার বাকি থাকতেই ৫ উইকেটের জয় নিশ্চিত করে ফেলে অস্ট্রেলিয়া। আগামী পরশু (১৪ নভেম্বর) ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া।

বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হারের দায় হাসান আলির ওপরও চাপাতে চাইবে হয়তো অনেক পাকিস্তানি! নিজের কোটার চার ওভারে ৪৪ রান খরচায় উইকেটশূন্য থেকেছেন বলে নয়, গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ম্যাথু ওয়েডের সহজ এক ক্যাচও ছেড়েছেন পাকিস্তানি পেসার। শেই ওয়েডই তারপর শাহিন শাহ আফ্রিদিকে টানা তিন ছয় হাঁকিয়ে ম্যাচ শেষ করে দেন।

১৭৬ রানের সংগ্রহ নিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে শুরুতেই ধাক্কা দেন শাহিন আফ্রিদি। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে প্রথম ওভারেই ফেরান অ্যারন ফিঞ্চকে। তবে অপর প্রান্তে ডেভিড ওয়ার্নার ছিলেন সাবলীল। ওয়ার্নার ক্রিজে থাকা অবস্থায় ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার পাল্লাই ভারি মনে হচ্ছিল।

কিন্তু ৫২ থেকে ৯৬ এই ৪৪ রানের ব্যবধানে মিচেল মার্শ (২৮), স্টিভেন স্মিথ (৫), গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (৭) ও ডেভিড ওয়ার্নারকে তুলে নিয়ে ম্যাচে ফেরে পাকিস্তান। ওয়ার্নার ৩০ বলে তিনটি করে চার ছয়ে ৪৯ রান করে শাদাব খানের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ না দিয়েও মাঠ ছাড়েন। পাকিস্তানি ফিল্ডারদের আবেদনে আম্পায়ার আউট দিলে মাঠ ছাড়েন তিনি। কিন্তু পরে রিপ্লেতে দেখা যায় বল ব্যাটেই লাগেনি।

ওয়ার্নার ফেরার পর অস্ট্রেলিয়ার রান তোলার গতি এমনভাবে থমকে গেল যে মনে হচ্ছিল পাকিস্তানের জয় সময়ের ব্যাপার মাত্র। শেষ দিকে ঝড় তুলে সেই সম্ভবনাকে মিথ্যা প্রমাণ করে অস্ট্রেলিয়ার ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করেছেন ম্যাথু ওয়েড ও মার্কাস স্টয়নিস।

দুজনের ৪১ বলের জুটিটি ছিল ৮১ রানের। তাতে ওয়েড মাত্র ১৭ বলে করেন ৪১ রান। ২টি চারের পাশাপাশি ৪টি ছক্কা মেরেছেন যার তিনটিই পরপর শাহিন শাহ আফ্রিদিকে। স্টয়নিস ৩১ বলে দুটি করে চার ছয়ে ৪১ রান করে অপরাজিত ছিলেন। পাকিস্তানের হয়ে শাদাব খান ৪ ওভারে ৩৫ রান খরচায় নিয়েছেন ৪টি উইকেট।

রোমাঞ্চকর সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার জয়

এর আগে টস জিতে বোলিং বেছে নিতে বেশি চিন্তা করতে হয়নি অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চকে। বিশ্বকাপে রাতের ম্যাচগুলোতে আগে বোলিং করা এবং পরে ব্যাটিং করা দলগুলো বরাবরই সুবিধা পেয়ে আসছে। তবে পাকিস্তান অস্ট্রেলিয়াকে বোলিংয়ের সুবিধাটা ঠিকভাবে নিতে দেয়নি।

পুরো টুর্নামেন্ট জুড়েই দুর্দান্ত ব্যাটিং করা বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান ১০ ওভারের ওপেনিং জুটিতে তোলেন ৭১ রান। দারুণ খেলতে থাকা বাবর ৩৪ বলে ৫টি চারে ৩৯ রান করে ফিরলে পাকিস্তানের রান তোলার গতি কমে যায়। কারণ রিজওয়ান একপ্রান্তে বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রান তুললেও তিনে নামা ফখর জামান শুরুতে বড্ডই ধীরগতির ছিলেন।

তবে সেট হওয়ার পর সেই ফখরই ভয়ঙ্কর রুপ ধারণ করেন। দলীয় ১৪৩ রানের মাথায় ফেরার আগে রিজওয়ানও ছিলেন সাবলীল। ৫২ বল খেলে ৩টি চার ৪টি ছয়ে ৬৭ রান করে ফেরেন রিজওয়ান। ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তানের ইনিংস যখন ১৭৬ রানে থামল ফখর তখন অপরাজিত ছিলেন ৫৫ রানে। মাত্র ৩২ বল খেলে এই রান করতে ৩টি চার, ৪টি ছক্কা মেরছেন তিনি।

মাঝে আসিফ আলি, শোয়েব মালিক ও মোহাম্মদ হাফিজ ক্রিজে নেমে সুবিধা করতে পারেননি। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৩৮ রান খরচায় সর্বোচ্চ ২টি উইকেট নিয়েছেন মিচেল স্টার্ক।

ভারতের আয়োজনে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ওমানে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ২০২১ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এবারের বিশ্বকাপের সবকটি ম্যাচ সরাসরি সম্প্রচার করবে দেশের জনপ্রিয় স্যাটেলাইট চ্যানেল জিটিভি। এছাড়াও বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় অনলাইন প্ল্যাটফর্ম র‍্যাবিটহোলের ওয়েবসাইটে দেখা যাবে বিশ্বকাপের খেলা। অনলাইনে র‍্যাবিটহোলে খেলা দেখতে ব্রাউজ করুন https://www.rabbitholebd.com/